ফেসবুক প্রটেক্ট

ফেসবুক প্রটেক্ট চালু না করায় হাজার মানুষের একাউন্ট লক

ফেসবুক গত বছর থেকেই বাছাইকৃত ব্যবহারকারীদেরকে ইমেইল দিয়ে আসছে যে নিরাপত্তার জন্য তাদের নতুন একটি ফিচার ব্যবহার করতে হবে। এই ফিচারটির নাম হচ্ছে ফেসবুক প্রটেক্ট। এ ব্যাপারে ব্যবহারকারীদেরকে ইমেইল করেছে ফেসবুক। কিন্তু এখানেই ছিল বিপত্তি। ইমেইলে এরকম অনেক প্রতারণামূলক মেইল আসে যেখানে বলা হয়ে থাকে যে আপনার একাউন্ট লক করা হয়েছে। এরপর তাদের দেওয়া লিংকে ক্লিক করলে উল্টো ভাল একাউন্ট হ্যাক হয়ে যায়।

আর এজন্যই অনেকে ভেবেছে ফেসবুক প্রটেক্টের নামে আসা ওই ইমেইলটি মনে হয় ভুয়া। তাই অনেকে ভয়ে সেটা ওপেনই করেননি। কিন্তু হাজার হাজার স্প্যাম বা প্রতারণামূলক ইমেইলের ভিড়ে ফেসবুক প্রটেক্টের একটি ইমেইল যে সত্যি ছিল সেটা বুঝতে পারেননি অনেক ব্যবহারকারী।

কিন্তু এটা ব্যবহারকারীর দোষ নয়। কারণ এই ধরনের ইমেইল প্রায় সব সময় ক্ষতিকর হয়ে থাকে। তবে আমরা অতীতে দেখেছি যে ফেসবুকে লগইন করলে নোটিফিকেশন পাওয়া যায় যে আপনি অমুক তারিখের মধ্যে ফেসবুক প্রটেক্ট চালু না করলে আপনার একাউন্ট লক করে দেওয়া হবে।

তাই আপনি ইমেইলটি এড়িয়ে যাবেন ভাল কথা, কিন্তু আপনি নিশ্চয়ই ফেসবুক অ্যাপের মধ্যে নোটিফিকেশন পেয়েছেন? তাহলে সেটা কেন এড়িয়ে গেলেন? অনেকে অলসতা করেও এটা এড়িয়ে গেছেন। সাম্প্রতিককালে যেসব ব্যবহারকারীদের ফেসবুক প্রটেক্ট চালু করতে বলা হয়েছিল তাদের লাস্ট ডেট ছিল ১৭ বা ১৮ মার্চ। অর্থাৎ এই তারিখের মধ্যে তাদের ফেসবুক প্রটেক্ট চালু করতে হবে।

এখন খবর পাওয়া যাচ্ছে যে যারা ১৭ বা ১৮ মার্চের মধ্যে ফেসবুক প্রটেক্ট চালু করেননি তারা এখন আর ফেসবুক একাউন্টে ঢুকতে পারছেন না। অর্থাৎ তারা ফেসবুকে সাইন ইন বা লগইন করতে পারছেন না। তাদের ফেসবুক একাউন্ট লক হয়ে গেছে।

ফেসবুকে লগইন করতে গেলে তাদের বলা হচ্ছে যে আপনি প্রটেক্ট চালু করলে একাউন্টে লগইন করতে পারবেন। সেসব একাউন্টের মালিকদের এখন বাধ্য হয়ে প্রটেক্ট চালু করতে হবে।

অপরদিকে অনেকে টুইটারে লিখেছেন যে তারা প্রটেক্ট চালু করার চেষ্টা করছেন ঠিকই কিন্তু ফেসবুক থেকে ২-স্টেপ ভেরিফিকেশনের মেসেজ আসছেনা। হতে পারে অনেক ব্যবহারকারী এক সময় এই ফিচারটি ব্যবহার করতে যাচ্ছেন তাই সিস্টেম এই লোড নিতে পারছেনা।

ফেসবুক বরাবরই বলে আসছে যাদের ফেসবুক একাউন্ট বড় কোনো পেজের সাথে সংযুক্ত কিংবা যাদের অনেক ফলোয়ার আছে তাদের একাউন্ট হ্যাক হওয়ার ঝুঁকি বেশি। আর এ ধরনের বিশাল ফলোয়ার সমৃদ্ধ ফেসবুক একাউন্ট হ্যাক হলে সেগুলো থেকে ক্ষতিকর পোস্ট পাবলিশ করা হতে পারে। এজন্য এ ধরনের একাউন্টের বাড়তি নিরাপত্তা দরকার।

সেই বাড়তি নিরাপত্তার অংশ হিসেবে ফেসবুক প্রটেক্ট ফিচারটি চালু করেছে মেটা। ফেসবুক প্রটেক্ট ফিচারটির মধ্যে রয়েছে টু স্টেপ ভেরিফিকেশন এবং ফেসবুকের বিশেষ থ্রেট মনিটরিং সিস্টেম। সেই সাথে শক্তিশালী পাসওয়ার্ড সেট করাও এই ফিচারটির একটি অংশ। ফেসবুক প্রটেক্ট চালু করার মানে হচ্ছে একাউন্টে টু স্টেপ ভেরিফিকেশন (বা টু ফ্যাক্টর অথেনটিকেশন) চালু করা এবং শক্তিশালী একটি পাসওয়ার্ড সেট করা আছে সেটি কনফার্ম।

যারা ফেসবুকের দেওয়া নির্ধারিত সময়ের মধ্যে প্রটেক্ট চালু করবেন না তাদের একাউন্ট সাময়িক লক হয়ে থাকবে। প্রটেক্ট চালু না করলে এতে লগইন করা যাবেনা।

ফেসবুক প্রটেক্ট হোক কিংবা যেকোনো নিরাপত্তামূলক ফিচার হোক, সব সময় সেটা স্ব স্ব সাইট থেকে চালু করা বুদ্ধিমানের কাজ হবে। তাই আপনি যদি ফেসবুক প্রটেক্টের কারণে একাউন্টে লগইন না করতে পারেন, তাহলে ভয় পেয়ে যাবেন না। বরং ফেসবুক অ্যাপ অথবা ফেসবুক সাইট থেকে ফিচারটি চালু করে নিন।